হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীরা এখনি সাবধান হয়ে যান

হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীরা এখনি সাবধান হয়ে যান। আপনিও পড়তে পারেন বিপদের সম্মুখীনে। কেন বলছি এই কথা? আজকে এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। অনুগ্রহ করে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত ভালোভাবে পড়বেন।

হোয়াটসঅ্যাপে বড় ধরনের ত্রুটি বিদ্যমান। হোয়াটসঅ্যাপে আপনি যা বলেননি বা যা লেখেননি, তা–ই দেখাতে পারে। চাইলে দুর্বৃত্তরা বিশেষ প্রোগ্রাম ব্যবহার করে হোয়াটসঅ্যাপের বার্তা বদলে দিতে পারে। হোয়াটসঅ্যাপ প্ল্যাটফর্মে ব্যবহারকারীর বার্তা বদলে দেওয়ার টুল সম্প্রতি উন্মুক্ত হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ফেসবুকের মালিকানাধীন হোয়াটসঅ্যাপে মারাত্মক ত্রুটি রয়েছে, যা কাজে লাগিয়ে ব্যবহারকারীর কোনো কথা বা শব্দ বদলে ফেলা যায়। আজ বৃহস্পতিবার বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, হোয়াটসঅ্যাপের নিরাপত্তা ভেঙে গ্রাহক তথ্য হাতিয়ে নিতে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে ভয়েস কলিং ফিচার। এ হামলার সঙ্গে ইসরায়েলি নিরাপত্তা কোম্পানি এনএসও গ্রুপের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন করা কোড ব্যবহার করে হোয়াটসঅ্যাপে হামলা চালানো হয়।

জানা গেছে, নির্দিষ্ট কোনো স্মার্টফোন থেকে ভয়েস কল করা হচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীর স্মার্টফোনে। কেউ ফোন কল ধরুক বা না ধরুক, স্বয়ংক্রিয়ভাবে স্মার্টফোনে ইনস্টল হয়ে যাবে হ্যাকিংয়ের স্পাইওয়্যার। এভাবে বিপুলসংখ্যক হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্যে প্রবেশ করেছে সাইবার অপরাধীরা।

সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান চেকপয়েন্টের গবেষকেরা দাবি করেছেন, হোয়াটসঅ্যাপের ত্রুটি বের করার পাশাপাশি হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো বার্তা বদলে ফেলার টুল বা প্রোগ্রাম সম্পর্কে জানতে পেরেছেন।

গবেষক ওডেড ভানুনু দাবি করেছেন, বিশেষ প্রোগ্রাম ব্যবহার করে সাইবার দুর্বৃত্তরা হোয়াটসঅ্যাপ প্ল্যাটফর্মে কথাবার্তা বদলে ফেলতে পারে। হোয়াটসঅ্যাপের ত্রুটি কাজে লাগিয়ে ভুয়া খবর ছড়ানো বা প্রতারণা করা যায়।

ভানুনু দাবি করেন, হোয়াটসঅ্যাপের কোটিং ফিচার কাজে লাগিয়ে কারও লেখাকে বদলে তার অনুরূপ লেখা প্রকাশ করা যায়। একজন কি বলেছে, তার সম্পূর্ণ ভিন্ন অর্থে বদলে ফেলা সম্ভব। এ ছাড়া বার্তা প্রেরকের পরিচয় শনাক্ত করার বিষয়টিও জানিয়ে দেওয়া সম্ভব এতে। এ ছাড়া একান্ত বার্তাগুলো একজনের কাছে পাঠানোর বদলে সবার কাছে চলে যায়।

সবশেষ কথা: আমি আপনাকে বলছি না যে whatsapp ব্যবহার করা বন্ধ করে দিতে। whatsapp এখন চালাবেন কি চালাবেন না সেটি নিত্যান্তই আপনার ব্যাপার। আমি শুধু আপনাদের সতর্ক করে দিলাম।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*